ছাত্রদল কমিটি নিয়ে ফতুল্লায় বিক্ষোভ ; রনির কুশপুত্তলিকা দাহ

নিজস্ব প্রতিবেদক : ত্যাগী- পরীক্ষিত, নির্যাতিতদের বাইরে রেখে অছাত্র, বিবাহিত, মাদকাসক্তদের স্থান দিয়ে আহবায়ক কমিটি গঠনের অভিযোগ এনে জেলা ছাত্রদল সভাপতি মশিউর রহমান রনির বিরুদ্ধে ফতুল্লায় প্রতিবাদ সমাবেশ, বিক্ষোভ মিছিল সহ কুশপুত্তলিকা দাহ করেছে বিক্ষুব্ধ ছাত্রদল নেতা- কর্মীরা।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টায় বিক্ষুব্ধ ছাত্রদল নেতাকর্মীরা ঢাকা- নারায়নগঞ্জ পুরাতন সড়কের দাপা বালুর ঘাট এলাকা থেকে মিছিল নিয়ে পোস্ট অফিস বাস স্ট্যান্ডে এসে মিছিল শেষ করে জেলা ছাত্রদল রনির কুশপুত্তলিকা দাহ করে।

এর আগে দাপা বালুর ঘাট এলাকায় প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন জেলা ছাত্রদল সভাপতি রনি ফতুল্লা থানা আহবায়ক কমিটি গঠন নিয়ে নগদ- -বিকাশ বানিজ্যের মাধ্যমে নিজ ক্ষমতা বলে ত্যাগী,নির্যাতিত,পরীক্ষিত নেতাদের বাদ দিয়ে স্কুলের গন্ডি পার হতে পারেনি এমন অছাত্র,বিবাহিত,প্রয়াত সৈনিক লীগ নেতার পুত্র,মাদকাসক্ত এবং নিকটাত্মীয় স্বজনদের দিয়ে সুবিধাবাদীদের কে স্থান দিয়ে আহবায়ক কমিটি ঘোষনা করেছে।বক্তারা এই কমিটি প্রত্যাখান সহ প্রতিরোধের ঘোষনা দিয়েছেন এবং এ বিষয়ে কেন্দ্রিয় কমিটির নীতি নির্ধারকদের নিকট তথ্য প্রমান সহ নালিশ করবেন বলে তারা জানান।
উল্লেখ্য যে চলতি মাসের প্রথম দিনে
ফতুল মেহেদী হাসান দোলন আহবায়ক সদস্য সচিব রাকিব আহম্মেদ রিয়াদ সহ ২১ সদস্য বিশিষ্ট ফতুল্লা থানা আহবায়ক কমিটি ঘোষনা করা হয়।

পদবঞ্চিত বিক্ষুব্ধ নেতা- কর্মীদের অভিযোগ রিয়াদ আহম্মেদকে ভুয়া সার্টিফিকেট দিয়ে ফতুল্লা থানার ছাত্রদলের আহবায়ক কমিটির সদস্য সচিব করা হয়েছে।তাছাড়া তিনি মাদকাসক্ত এবং ডিভোর্সি বলেও জানা যায়।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কাশীপুর ইউনিয়ন ছাত্রদলের একজন কর্মী জানান যেখানে রিয়াদ আহম্মেদ কখনো এস,এস,সি পরিক্ষায় অংশগ্রহণই করেন নাই সেখানে ফতুল্লা থানা ছাত্রদলের সদস্য সচিবের মত একটা গুরুত্বপূর্ণ পদ পাওয়ার কোন যোগ্যতাই তার নাই।

কিন্তু ছাত্রদলে পদ প্রাপ্তির আশায় জেলা সভাপতি রনির পরামর্শে সে অন্য একজনের ভুয়া সাট্রিফিকেট সংগ্রহ করে সেই সার্টিফিকেটের এর নামের সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে নতুন আইডি খুলেছে রাকিব আহাম্মেদ রিয়াদ নামে।

আর মশিউর রহমান রনি কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের ঢাকা বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক হওয়ার কারনে ছাত্রদলের বিভাগীয় সাংগঠনিক টিমের তদন্তের সময় এই ব্যাপারটা গোপন রেখেই টিমকে বিভ্রান্ত করে তার কাজ হাসিল করে নেয়।

অপরদিকে রেমন রাজিব নামে আরেকজনকে রনি ফতুল্লা থানা ছাত্রদলের আহব্বায়ক কমিটিতে সদস্য পদ দিয়েছেন যে ব্যাক্তির এস.এস.সি পরিক্ষার সার্টিফিকেট নাই।
সে সম্পর্কে জেলা ছাত্রদল সভাপতি মশিউর রহমান রনির বেয়াই আর সে কারনেই তাকে ফতুল্লা থানা ছাত্রদলে সদস্য করেছেন।

এছাড়াও ফতুল্লা থানা ছাত্রদলে রনি ক্ষমতাবলে নিজের আপন ভাগিনা ও প্র‍য়াত সৈনিক লীগ নেতা মোখলেসুর রহমানের ছেলে ইয়াসিন আরাফাতকে ফতুল্লা থানা ছাত্রদলের যুগ্ন আহব্বায়ক করেছেন।
জানা যায় ইয়াসিন আরাফাত কখনোই ছাত্রদলের সাংগঠনিক কাজে সম্পৃক্ত ছিলো না। কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার পরেই রনি নিজের ভাগিনাকে পদায়ন করার জন্য ইয়াসিন আরাফাতকে দিয়ে কিছু রাজনৈতিক নেতাদের শুভেচ্ছা ও কেক কাটার মত প্রোগ্রামে ফটোসেশান করিয়ে তার রাজনৈতিক প্রোফাইল তৈরী করেছেন।

দীর্ঘ ১৭ বছর পর গঠিত ফতুল্লা থানা ছাত্রদলে এসব ছাড়াও অসংখ্য অসংগতি আছে বলে ছাত্রদলের সর্বস্তরের কর্মীদের অভিযোগ।

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment