ছাত্রদলের আহ্বায়ক বিবাহিত, যুগ্ম আহ্বায়ক ছাত্রলীগের

নারায়ণগজ্ঞ নিউজ ২৪ ডট কম : দীর্ঘ ২২ বছর পর একজন বিবাহিত ও অপর একজন ছাত্রলীগ নেতাকে দিয়ে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

তৃণমূল ছাত্রদল কর্মীদের অভিযোগ, মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হাসান শ্যামল ও জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম সজীব রূপগঞ্জের বিতর্কিত ও বিবাহিত সুলতান মাহমুদ নামে একজনকে আহবায়ক পদে আসীন করেছেন।

পাশাপাশি ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক আরিফ বিল্লাহকে ওই কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে রূপগঞ্জসহ পুরো জেলার ছাত্রদল নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভ বিরাজ করলেও এ নিয়ে রীতিমতো নিজের অসহায়ত্ব প্রকাশ করেছেন জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের ঢাকা বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান রনি।

ইতোমধ্যেই অনুমোদন পাওয়া ২১ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটির ১৪ জন্যই এ কমিটির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছেন বলে জানা গেছে।

দলীয় সূত্র জানায়, গত ২৭ মার্চ রূপগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রদল কমিটি। ২২ বছর পর রূপগঞ্জ থানা ছাত্রদলের নতুন কমিটিতে আহ্বায়ক পদ পাওয়া সুলতান মাহমুদ বিবাহিত। তিনি ২০১৮ সালে রূপগঞ্জ উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়ন যুবদলের সাবেক সভাপতি জামান মিয়ার মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌসি জেরিনকে বিয়ে করেন।

বিয়ে পড়ান কাজী আবু তাহের। বিয়েতে উকিল বাবা হয়েছিলেন কালিগঞ্জের বাদার্তী গ্রামের আব্দুস সাত্তার। মেয়ের বোনের জামাই সৌদি প্রবাসী ইসমাইল হোসেন বিয়ের প্রধান সাক্ষী। শুধু এখানেই শেষ নয়, সুলতান মাহমুদের চারিত্রিক স্খলন নিয়েও রয়েছে নানা বিতর্ক।

নিজের ফেসবুক আইডি থেকে নানা সময়ে আপত্তিকর অবস্থায় নারীদের ভিডিও কল দিয়ে উত্ত্যক্ত করার অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। সম্প্রতি এমন একটি ভিডিও ভাইরালও হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

সেখানে দেখা গেছে, মাতাল অবস্থায় সুলতান মাহমুদ নগ্ন হয়ে এক নারীকে ভিডিও কল দিয়েছেন এবং অপরপ্রান্ত থেকে তার সহযোগী সেই ভিডিও ধারণ করছেন।

অপরদিকে এই নতুন আহ্বায়ক কমিটিতে আরিফ বিল্লাহ আলিফ নামে যাকে যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে তিনি এলাকায় ছাত্রলীগ নেতা হিসেবে পরিচিত।

জানা গেছে, ২০১৮ সালে ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক ছিলেন আলিফ। স্থানীয় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন কর্মসূচিতেও অংশ নিয়েছেন আলিফ।

অভিযোগ রয়েছে- এলাকায় আলিফের হাতে বহু ছাত্রদল ও বিএনপির নেতাকর্মী লাঞ্ছিত হয়েছেন।

রূপগঞ্জ ছাত্রদলের ত্যাগী নেতারা জানান, এসব বিষয় কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের নেতারা অবগত থাকলেও শুধুমাত্র টাকার বিনিময়ে এ কমিটি করে দেয়া হয়েছে।

আহ্বায়ক কমিটির যে ১৪ জন প্রেস কনফারেন্স করেছেন তারা জানান, সম্প্রতি বিতর্কিত আহ্বায়ক সুলতান মাহমুদ কমিটি পাওয়ার আগে নিজেদের দাউদপুরের একটি জমি বিক্রি করেন ৩০ লাখ টাকায়।

মূলত কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হাসান শ্যামল ও জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক খাইরুল ইসলাম সজীব এ আর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে কমিটি চূড়ান্ত করেছেন।

তারা জানান, এ বিষয়ে বিবাহিত ও ছাত্রলীগের নানা প্রমাণসহ কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের দপ্তরে লিখিত আকারেও অভিযোগ দেয়া হয়েছে। এসব অভিযোগ কেন্দ্রীয় দপ্তরে গ্রহণ করা হয়েছে। এখন দ্রুত এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত আসবে বলে আমরা আশা করি।

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হাসান শ্যামল জানান, উপজেলা বা থানা কমিটি অনুমোদন দেয়ার এখতিয়ার জেলা কমিটির। তারা কমিটি করে নিয়ে আসে আর আমরা তাদের গাইড করি কীভাবে কমিটি করতে হবে; যেন কোনো অছাত্র বা সন্ত্রাসী বা অন্য দলের কেউ কমিটিতে স্থান না পায়। রূপগঞ্জে এমনটি হয়ে থাকলে সেটির দায়দায়িত্ব আগে জেলার নিতে হবে। কারণ সারা দেশে এত কমিটি খেয়াল রাখা সম্ভব নয়। সেজন্য জেলা কমিটিকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

অর্থের বিনিময়ে এ কমিটি দেয়া হয়েছে- এমন অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করে শ্যামল জানান, যদি বিবাহিত ও ছাত্রলীগের কাউকে দিয়ে কমিটি করা হয়ে থাকে এবং লিখিত অভিযোগ প্রমাণসহ পাই তবে গঠনতান্ত্রিকভাবেই আমরা কঠোর ব্যবস্থা নেব। এখনও পর্যন্ত কোনো লিখিত অভিযোগ পাননি বলেও জানান তিনি।

এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের ঢাকা বিভাগীর সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মশিউর রহমানের রনি জানান, আহ্বায়ক যে বিবাহিত সেটা আমরাও জানি, কেন্দ্রও জানে। যেহেতু কমিটি কেন্দ্র থেকে দেয়া হয়েছে সেহেতু এ ব্যাপারে আমার কোনো মন্তব্য নেই।

অপরদিকে অভিযোগের বিষয়ে জানতে জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক খাইরুল ইসলাম সজীবের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করবেন না বলে জানিয়ে দেন।
সূত্র, যুগান্তর

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment