এমন সময় আসলেন যখন আমার মা নেই

নারায়ণগন্জ নিউজ ২৪ ডট কম : নারায়ণগন্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত আইভীর মা এর মৃত্যুতে সমাবেদনা জানাতে তার বাসায় গিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের সাবেক এসপি হারুন আর রশিদ (বর্তমানে অতিরিক্ত উপ-মহাপরিদর্শক)।

শনিবার (৩১ জুলাই) বিকেল ৩টার দিতে সাবেক এই এসপি পশ্চিম দেওভোগ এ অবস্থিত মেয়র আইভীর বাসা চুনকা কুটির এ যান। সেখানে প্রায় আধা ঘন্টার উপরে মেয়র আইভীর সাথে সাবেক এসপি হারুন কথা বলেন ও শোক প্রকাশ করেন।

সাবেক এসপি হারুন ও মেয়র আইভীর মাঝে যে কথপোকথন হলো:-

চুনকা কুটির এ প্রবেশ করতেই মেয়র আইভী ভারাক্রান্ত মন নিয়ে সাবেক এসপি হারুনকে বলেন, আপনি এমন সময় আসলেন যখন আমার মা আর নেই।

এ সময় সাবেক এসপি হারুন তার মায়ের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে বলেন, আমি ১৫ দিনের জন্য গ্রামের বাড়ি গিয়েছিলাম, তাই আপনার মায়ের মৃত্যুর খবর আমি প্রথমে জানতে পারিনি।

মেয়র আইভী বলেন, আমার মার মাত্র ৭৩ বছর বয়স হয়েছিলো। আমরা ভাবতেও পারিনি যে উনি আমাদের ছেড়ে এতো তারাতারি চলে যাবেন। এমনকি ডাক্তারের কাছে নেয়ার সুযোগটাও মা আমাদের দেননি। আমার মা এর মৃত্যুর ১০ মিনিট আগে আমি ওনাকে জিজ্ঞেস করি ‘তোমার কি শ্বাস কষ্ট হইতাছে মা’। মা বললেন, না আমার শ্বাস কষ্ট হচ্ছে না কিন্তু আমার ভালো লাগতাছে না। এ কথা বলে বাসার এ পাশ থেকে ও পাশ, ও পাশ থেকে এ পাশ।

এ সময় নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি এড. মাহবুবুর রহমান মাসুম বলেন, নারায়ণগঞ্জে এমন কোন আওয়ামী লীগ নেতা নেই যে কিনা ওনার (মেয়র আইভী) মায়ের হাতের খাবার না খেয়েছেন। ৩০-৪০ জন মানুষের খাবার একসাথে রান্না করতেন।

সাবেক এসপি হারুন বিদেশে নেয়ার কথা জিজ্ঞেস করায় মেয়র আইভী বলেন, আমি মা কে বিদেশে নেয়ার কথা চিন্তা করেছিলাম, কিন্তু করোনার কারনে এয়ারপোর্ট গুলোও বন্ধ।

এ সময় সাবেক এসপি হারুন তার গ্রামের বাড়ির কিছু দৃশ্য মেয়র আইভীর কাছে তুলে ধরেন।

মেয়র আইভী বলেন, একটা হাদিস আছে যে, ‘আল্লাহ যাকে চাইবে তাকে দিবে এবং যাকে চাইবে না তাকে দিবে না’। করোনার এই মহামারি টা আস্তে আস্তে কিন্তু দুর্বল হয়ে পরছে।

এ সময় সাবেক এসপি হারুন বলেন, করোনা কালে আমি কাজ করতে গিয়ে যে কয় বার আক্রান্ত হয়েছি তা হিসাবের বাইরে। আমি তো বাইরে বেশি বের হই। আলেম ওলামাদের বিষয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশে আলেমদের সাথে আমার কিন্তু অনেক ভালো সম্পর্ক। এটা বাংলাদেশের সবাই জানে। তাদের সাথে ভাত খাই, তাদের ওয়াজ শুনি। মামুনুল হককে ধরার পরিকল্পনা যখন চলছিলো তখন আমার এক বড় অফিসার আমাকে বলে‘ তুমি ধর তুমি ধরো’। দুই-আড়াই শত ডিবি অফিসার সেখানে জর হয়েছিলো।

বিদায় কালে সাবেক এসপি হারুনকে তার সহধর্মীনিকে সঙ্গে করে নিয়ে আসার আমন্ত্রন জানান মেসয়র আইভী।

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment