বিদ্যুৎ বিল বকেয়া, সোনারগাঁওয়ে পানি সরবরাহ বন্ধ

মাসুম মাহমুদ : বিদ্যুৎ বিল বকেয়ার কারনে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধীনে বাংলাদেশ ওয়াটার সাপ্লাই ও স্যানিটেশন মেসার্স আদেল এন্টারপ্রাইজ নামে প্রকল্পের নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার মোগরাপাড়া পাইপ লাইন প্রকল্পের পানি সরবরাহ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

সোনারগাঁও সরকারি কলেজ সংলগ্ন পানি সরবরাহ লাইনটি গত এক সপ্তাহ ধরে বন্ধ রয়েছে। পানি সরবরাহ বন্ধ থাকায় অত্র ইউনিয়নের বিশেষখানা, বড়নগর, ষোল্লাপাড়া, খুলিয়াপাড়া, দমদমা, গোহাট্টা, ফুলবাড়িয়া, ডহরপাড়া, নগর সাদিপুর, বাড়িচিনিশ, ইউসুফগঞ্জ সহ ১২ গ্রামের মানুষ রান্নাবান্না, গোসল ও কাপর ধোয়াসহ নানা ধরনের গুরুত্ব পুর্ন কাজ করতে পারছে না জনসাধারণ। আসে পাশে পুকুর ও খালবিল না থাকার কারনে পানির অভাবে সাধারণ মানুষ তাদের নিত্য দিনের প্রয়োজন মিটাতে পারছে না।

স্থানীয় সাংবাদিক মাসুম মাহমুদ বলেন, পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের এজিএম-এর সাথে কথা বলে জানতে পারি, বর্তমানে মোগরাপাড়া পানির সরবরাহ লাইনটির বকেয়া এক লক্ষ চলিশ হাজার টাকা। তিনি বলেন এত টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া থাকলে কিভাবে হয়, আমাদেরও অফিসে হিসাব দিতে হয়। তাই এর একটি ব্যবস্থা করেন। বিল বকেয়া থাকায় আমরা অনেক চাপের মধ্যে আছি।
এদিকে এক সপ্তাহ ধরে আমাদের মোগরাপাড়ার পানি সরবরাহ লাইনটিতে পানি নাই। এব্যাপারে তাদের সাথে যোগাযোগ করলে তারা ফোন রিসিভ করেনা। আমরা এলাকাবাসী ঠিকমত মানসম্মত পানি থেকে বঞ্চিত। পানির রং হলুদ, সরবরাহ পানি না থাকায় আমরা অত্র এলাকাবাসী মানবেতর জীবন যাপন করছি। অনেকের বাড়িকে মটর নাই, তারা কি পানি ব্যবহার করবে না? আমি নিজে আমার বাড়ির আশেপাশের সাধারণ মানুষকে কয়েকশ পানির পাইপ কিনে পানি সরবরাহ দিচ্ছি। তাই দ্রæত উক্ত পানির সরবরাহের লাইনটি সচল করার জন্য জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধীনে বাংলাদেশ ওয়াটার সাপ্লাই ও স্যানিটেশন মেসার্স আদেল এন্টারপ্রাইজ নামে প্রকল্পের পরিচালককে অনুরোধ জানাচ্ছি।

জানা যায়, ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে উপজেলার মোগরাপাড়া ইউনিয়নের বিশেষখানা এলাকায় জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধীনে বাংলাদেশ ওয়াটার সাপ্লাই ও স্যানিটেশন মেসার্স আদেল এন্টারপ্রাইজ নামে প্রকল্পটি স্থাপিত হয়। শুরু থেকেই জনসাধারণকে মানসম্মত পানি সরবরাহ দিতে পারছিলনা প্রকল্পটি। এই প্রকল্পের দায়িত্বে থাকা লোকজনের সাথে কথা বললে তারা জানায়, তাদের কর্মচারী পানির বিলের টাকা তুলে বিলের প্রায় আড়াই লাখ টাকা নিয়ে পালিয়ে গেছে। মাসে মাসে বিদ্যুৎ বিল দিতে না পারায় বিদ্যুৎ অফিস পানি সরবরাহ লাইন বন্ধ করে দেয়।

মোগরাপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরিফ মাসুদ বাবু বলেন, প্রকল্প প্রধানের সাথে কথা বলেছি। পানির লাইনের বিল বকেয়া তুলে জরুরী ভাবে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করে লাইনটি সচল করতে বলেছি। প্রয়োজনে এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে পানির বকেয়া তুলতে সহযোগীতা করবো।

মোগরাপাড়া পানির লাইন প্রকল্প সদস্য শিপন মেম্বার বলেন, বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করে কয়েক দিনের মধ্যে পানির লাইনটি সচল করা হবে।

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment