নারায়ণগঞ্জে দেয়াল ধসে ২ জনের মৃত্যু

নারায়ণগন্জ নিউজ ২৪ ডট কম : নারায়ণগঞ্জের বন্দরে সিটি কর্পোরেশনের ড্রেন নির্মাণ কাজ করার সময় একটি সরকারী প্রাইমারী স্কুলের দেয়াল ধ্বসে পড়ে তিন শ্রমিক আহত হয়েছে।

আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠালে সেখানে দুই শ্রমিকের মৃত্যু হয়। নিহতরা হলো হৃদয় হোসেন (৩০), দুলালী বেগম (৩৫)। অপর আহত মিম আক্তার (৩৬) এর অবস্থাও আশংকাজনক।

মঙ্গলবার দুপুর ১টায় বন্দরের উত্তর লক্ষন খোলা এলাকায় সিটি কর্পোরেশনের ড্রেনের নির্মাণকাজ চলছিলো। এসময় ঠিকাদার নিরাপত্তা ব্যাবস্থা না করে ড্রেনের কাজ করার সময় প্রইমারী স্কুলের দেয়াল ধসে পড়ে ৩ শ্রমিকের উপর। গুরুতর আহত শ্রমিকদের প্রথমে তাদের বন্দর উপজেলা স্বস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় জরুরী বিভগের চিকিৎসক তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

ড্রেন নির্মাণ কাজে নিয়োজিত জাহেদা বেগম নামের নারী শ্রমিক জানান, সকাল থেকে তারা ১০ জন শ্রমিক ড্রেন নির্মাণেরর কাজ করছিল। দুপুর ১ টায় দিকে ড্রেনের পাশে উত্তর লক্ষন খোলা সরকারারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচীর দেয়াল ধসে পড়ে।

এসময় হৃদয়, মিম ও দুলালী নামের তিন শ্রমিক আহত হয়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার কাজ শুরু করে।
সোনারগাঁও ও রূপগঞ্জ এলাকার ফায়ার সার্ভিসের উপ সহকারী পরিচালক তানহারুল ইসলাম জানান, আহত তিনজনকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এখন ধ্বসে পড়া দেয়ালটি উদ্ধারের কাজ করা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে বন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ দিপক চন্দ্র সাহা জানান, উত্তর লক্ষন খোলা এলাকায় সড়কে ড্রেন নির্মান কাজ করছিল রাসেল নামের এক ঠিকাদার। আহত তিন শ্রমিকের মধ্যে একজন পুরুষ ও একজন নারী শ্রমিকের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ তদন্ত করছে।

নির্মাণাধীন ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানে কোন অবহেলায় বা ত্রæটির কারনে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনায় এখনো কেউ কোন অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে মামলা নেওয়া হবে।

স্থানীয় ২৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এনায়েত হোসেন ও এলাকাবাসী জানায়, সিটি কর্পোরেশনের ঠিকাদার রাসেল স্কুলের পাশে ড্রেন নির্মাণের কাজ করাচ্ছিলেন।

এসময় স্কুলের দেয়াল ধ্বসে ৩ শ্রমিক আহত হয়েছে বলে জেনেছি। ঠিকাদার যথাযথ নিরাপত্তা ব্যাবস্থা না করায় এবং স্কুলের দেয়াল রক্ষায় কোন প্রটেকশন না দেয়ায় মর্মান্তিক দূর্ঘটনাটি ঘটেছে বলে শুনেছি।

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment