এক সাথে তিন টীকা গ্রহনকারীর মানষিক সুস্থতার তদন্ত হচ্ছে

নারায়ণগন্জ নিউজ ২৪ ডট কম : করোনাভাইরাসের ৩টি টিকা একসাথে গ্রহণের দাবিদার সৌদি প্রবাসী ও নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার ভুইগড় এলাকার বাসিন্দা আলোচিত ওমর ফারুক এখনো সুস্থ আছেন। তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) শেখ ফজিলাতুন্নেছা কনভেনশন সেন্টারে মেডিসিন ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছেন।

টিকা নেয়ার পর তার জ্বর, সর্দি, কাশি কিংবা অন্য কোনো সমস্যা দেখা দেয়নি। ওমর ফারুক আদৌ টিকার তিন ডোজ নিয়েছেন কিনা তা খতিয়ে দেখতে ঐ হাডপাতালের মেডিসিন বিভাগের একজন অধ্যাপকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবারবিএসএমএমইউ’র পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নজরুল ইসলাম এসব তথ্য জানান। তিনি বলেন, ‘বিএসএমএমইউ ভিসি এবং তিনি বৃহস্পতিবার সকালেও ওমর ফারুকের সঙ্গে কথা বলেছেন। তিন ডোজ টিকা নেয়ার কথা বললেও তার হাতে কোনো চিহ্ন নেই।

সাধারণত এক ডোজ টিকা নিলেই সামান্য জ্বর, সর্দি কিংবা কাশি হতে পারে। কিন্তু তার ভাষ্য অনুযায়ী তিন ডোজ দিয়ে টিকা নেয়ার পরও তার কোনো ধরনের জ্বর-সর্দি-কাশি নেই।

ওমর ফারুক নামের এই যুবক মানসিকভাবে বিকারগ্রস্ত কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ কারণে তিন সদস্যের কমিটিতে একজন মানসিক বিশেষজ্ঞ রয়েছেন।

গত মঙ্গলবার ওমর ফারুক একটি বেসরকারি টেলিভিশনে দেয়া সাক্ষাৎকারে জানান, বিএসএমএমইউ টিকাদান কেন্দ্রের তিনটি বুথ থেকে তাকে তিনবার টিকা দেয়া হয়েছে।

এরপর ওই ব্যক্তিকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে বলেও গণমাধ্যমে খবর আসে। এ ঘটনা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিয়েছে। বুধবার তার সন্ধান পেয়ে তাকে একাধিকবার ফোন দিয়ে হাসপাতালে যেতে বলে। কিন্তু তিনি না যাওয়া দুপুরে মেডিকেল টীম এসে তাকে ফতুল্লার ভুইগড় এলাকা থেকে তুলে নিয়ে যায়।

ওমর ফারুকের বোন ফারজানা আক্তার বলেন, তিন ডোজ টিকা নেওয়ার পর তাঁর ভাইয়ের শরীরে হালকা জ্বর ও শরীর ব্যথা হয়েছিল। এছাড়া তেমন কোনো সমস্যা হয়নি। টিকা নেওয়ার বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর তাকে বিএসএমএমইউতে যাওয়ার জন্য অনেকবার ফোন করা হয়েছিল। কিন্তু তাঁর ভাই ভয়ে ফোন না ধরে পরে ফোন বন্ধ করে রাখেন। পরে বুধবার দুপুরে মেডিকেল টিম পরিচয়ে হাসপাতাল থেকে লোকজন এসে তাঁর ভাইকে তুলে নিয়ে গেছে।

ফারুকের বোন বলেন, ভাইয়ের সঙ্গে তাঁর স্বামী গোলাম সারোয়ার নাহিদকে দেওয়া হলেও তাকে রেখে গেছেন ওই টিমের সদস্যরা এর আগে মঙ্গলবার একসঙ্গে তিন ডোজ টিকা নেওয়ার এমন খবর মিথ্যা ও গুজব বলে দাবি করেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) ভিসি অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ। ভিসিবলেন,’অভিযোগকারী’ টিকাগ্রহণকারী ওই ব্যক্তিকে খুঁজে বের করার চেষ্টার পাশাপাশি এই ‘অপপ্রচারের’ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও বলছেন বিএসএমএমই ভিসি বলেন, বিষয়টি আমার নজরে এসেছে। আমি সংশ্লিষ্টদের ডেকেছিলাম।

এক ব্যক্তি তিন ডোজ টিকা নিতে পারেন না। এটা সম্ভব না। কারণ নিবন্ধন দেখেই টিকা দেওয়া হয়। এমন ঘটনা ভুল খবর।

তিনি আরও বলেন, ওই ব্যক্তিকে নিয়ে আসার জন্য বলেছি। তিন ডোজ টিকা নেওয়া ব্যক্তিকে খুঁজে বের করা হবে। লোকটি পাগল হতে পারে। তাকে খুঁজে বের করা হবে। সুস্থ মানুষের পক্ষে এমন ঘটনা ঘটানো সম্ভব।

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment