নারায়ণগঞ্জে গণটিকা নিতে এসে ভোগান্তি

নারায়ণগন্জ নিউজ ২৪ ডট কম : বেলা তখন ৩টা। করোনাভাইরাসের টিকা (প্রতিষেধক) নিতে লাইনে দাঁড়িয়েছেন গৃহিনী জেনিফা (৩৩)। সাথে দাঁড়িয়ে তার ৫৫ বছর বয়সী মা শিরিনা বেগম। প্রায় ৫ ঘন্টা যাবৎ লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন বলে জানান তারা।

বুধবার (১১ আগস্ট) নারায়ণগঞ্জ জেনারেল (ভিক্টোরিয়া) হাসপাতাল কেন্দ্রে এই চিত্র দেখা যায়। ক্ষুব্দ-বিরক্ত জেনিফা ও শিরিনা বেগম টিকা প্রদান কার্যক্রমে নিয়োজিত সংশ্লিষ্টদের অব্যবস্থাপনার অভিযোগ তোলেন।

শিরিনা ও জেনিফা জানান, মুঠোফোনে খুদেবার্তা পেয়ে সকাল ১০টায় টিকার জন্য লাইনে দাঁড়ান। শুরুতে লাইন ছিল হাসপাতাল ছাড়িয়ে রাস্তা হয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নগরভবনের সামনে। বেলা ১১টার দিকে হাসাপাতালের ভেতর প্রবেশ করতে পারেন। কিন্তু তখন শোনেন, হাসপাতালে বরাদ্দ টিকা শেষ। আবার বাসায় ফিরে যাওয়ার পর শুনতে পারেন, আবার টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। পুনরায় এসে লাইনে দাঁড়ান তারা।

হাসপাতালে টিকা প্রদান কার্যক্রমে অব্যবস্থাপনার অভিযোগ তুলে জেনিফা বলেন, এত এত মানুষ লাইনে দাঁড়ায়ে আছে, এখন কি করোনা ছড়ায় না? এইখানে করোনা আরও বেশি ছড়াইতাছে। ভ্যাক্সিনের নামে এখন শরীরে করোনা ঢুকতাছে। স্টাফদের পরিচিত লোকজন দেখে দেখে লাইন ভেঙে ঢুকানো হইতেছে। সরকারের উচিত ছিল সব ব্যবস্থা রাইখা তারপর টিকা দেওয়ার। কোনো সিস্টেমই ঠিক নাই। টিকা কীভাবে শেষ হয়।

তিনি আরও বলেন, সাধারণ জনগণ এইভাবেই হেনস্থার শিকার হবে। আপনারা লেইখা নিতে পারবেন, ছবি তুলবেন কিন্তু কিছু করতে পারবেন না। তার মা শিরিনা বলেন, টিকার ম্যাসেজ আসছে দেইখা সকাল থেইকা এই পর্যন্ত দাঁড়ায়ে রইছি। আমি অসুস্থ মহিলা মানুষ। এতক্ষণ কি আমরা দাঁড়ায়ে থাকতে পারি? আমার ৫০ বছর বয়সের এই জীবনে এমন তামাশা দেখি নাই। এই কথা বলার পরই ক্লান্ত শিরিনা লাইন থেকে বেরিয়ে হাসপাতাল চত্ত¡রের এক কোনায় গিয়ে বসে পড়েন।

সকাল ৮টায় লাইনে দাঁড়ান হাফসা। বেলা ১১টা বাজে টিকার বরাদ্দ শেষ শুনে ফিরে গিয়েছিলেন বাসায়। পরিচিত একজনের ফোনে আবার ফিরে আসেন। দুপুর আড়াইটায় টিকা নেন তিনি। হাফসা অভিযোগ করে বলেন, কোনো সিস্টেম নাই। ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থেকেও কেউ টিকা নিতে পারতেছে না। দীর্ঘ লাইনে একে-অপরের গা ঘেঁষে দাঁড়িয়ে ছিলেন। প্রতিষেধক নিতে এসে করোনায় সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকিতে পড়েছেন তারা।

হাসপাতালে দায়িত্বশীল কর্মকর্তা-কর্মচারী ও টিকাগ্রহীতাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ১২ আগস্ট থেকে করোনার প্রতিষেধক মডার্নার প্রথম ডোজ দেওয়া বন্ধ থাকবে; এমন খবর শুনে অনেকেই হাসপাতালে টিকা নিতে ভিড় করেন। মুঠোফোনে খুদেবার্তা না পেলেও টিকা কার্ড হাতে চলে আসেন হাসপাতালে। বেলা ১১টা নাগাদ নিয়মিত বরাদ্দের টিকা শেষ হয়ে গেলে টিকা প্রদান কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। এ নিয়ে হাসপাতালে হুলস্থুল বেঁধে যায়।

পরিস্থিতি সামলাতে সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহ্ জামানের নেতৃত্বে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয় হাসপাতালে। ওসি বলেন, সকাল থেকেই তারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাজ করেছেন। হাসপাতালে মাইকিং করার ব্যবস্থা ছিল না, তারা তা ব্যবস্থা করেছেন। লাইন ভঙ্গ করে যাতে কেউ ঢুকতে না পারে সেইদিকে নজর রেখেছেন তারা। অতিরিক্ত মানুষের চাপ সামলাতে বেগ পেতে হয়েছে তাদের।

তবে টিকা নিতে আসা ব্যক্তিদের অভিযোগ, পুলিশের সামনে দিয়েই হাসপাতালের স্টাফদের পরিচয় দিয়ে লাইন ভঙ্গ করে টিকা নিয়েছেন। টিকা নিতে আসা ষাটোর্ধ্ব মমতা রাণী সাহা বলেন, লাইন ভেঙে অনেকেই টিকা নিয়েছেন। হাসপাতালের লোকজনের পরিচয়ে তারা টিকা নিয়েছেন। একই অভিযোগ করেছেন পোশাক শ্রমিক সাইফুল ইসলাম।

দৈনিক দুই হাজার টিকা বরাদ্দ থাকলেও ওইদিন বিশেষ ব্যবস্থায় দ্বিগুন টিকা প্রদান করা হয়েছে বলে জানান নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল (ভিক্টোরিয়া) হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) মো. আসাদুজ্জামান।

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. শেখ মোস্তফা আলী বলেন, মডার্না টিকার প্রথম ডোজ প্রদান বন্ধ হয়ে যাবে শোনার পরই অতিরিক্ত মানুষ হাসপাতালে টিকা নিতে আসেন। এতেই চাপ বেড়ে যায়।

তাছাড়া সিটি এলাকায় অনেক লোকের বসবাস। অনেকেই গণটিক কার্যক্রমে টিকা দিতে পারেননি। তারা সবাই এসে হাসপাতালে ভিড় করাতে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিল। তবে চাহিদা অনুযায়ী বরাদ্দের চেয়ে দ্বিগুন টিকা দেওয়া হয়েছে। টিকা না নিয়ে কেউ ফিরে যাননি।

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment