ফতুল্লা রেলষ্টেশন বাজার মসজিদ মোতাওয়াল্লির বিরুদ্ধে মানববন্ধন

নারায়ণগঞ্জ নিউজ ২৪ ডট কম : মসজিদের অনিয়ম,টাকা আত্মসাৎ কারী ও ক্ষমতার অপব্যবহার কারীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করে সাধারন মুসল্লিগন। শুক্রবার(৩ সেপ্টম্বর) জুম্মা নামাজের পর ফতুল্লা রেলষ্টেশন বাজার মসজিদের সামনে এ মানববন্ধন করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন,বর্তমানে পরিলক্ষিত হচ্ছে, এই মসজিদের সাংগঠনিক নিয়ম-কানুনের চরম অবনতি হচ্ছে। আমাদের এই মসজিদটি পরিচালিত হওয়ার কথা সুস্থ এক কমিটির মাধ্যমে, সাংগঠনিক নিয়মে।

কিন্তু আমাদের এই মসজিদ বর্তমানে পরিচালিত হচ্ছে একক কর্তৃত্বে। আর যিনি কর্তৃত্ব করছেন তিনি আর কেউ নন, আমাদের এই মসজিদের মোতাওয়াল্লি মোঃ আফছার উদ্দিন। সে তার ক্ষমতার অপব্যবহার করে কমিটির কিছু অসাধু সদস্যদের নিয়ে কমিটির সভাপতি, সেক্রেটারী ব্যতীত গোপন মিটিং করে এবং নানাবিধ এককভাবে সিদ্ধান্ত নেন, যা অসাংগঠনিক। উনার একক সিদ্ধান্তে মসজিদের দানকৃত পুরাতন জমির দলিল বিকৃত করে নতুন দলিল রেজিস্ট্রি করেন। খতিয়ান নাম্বার সংশোধন করার কথা বলে খতিয়ান সংশোধন করার পাশাপাশি তাঁর ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্যই এ দলিল বিকৃত করা হয়েছে। সেটা এখন স্পষ্ট । দলিল সম্পাদন করতে যেখানে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা খরচ হওয়ার কথা থাকলেও উনি ২,১৭,০০০ (দুই লক্ষ সতের হাজার) টাকা খরচ দেখিয়ে বাকি টাকা আত্মসাৎ করেছে।

যেখানে মসজিদের নির্ধারিত কমিটি রয়েছে সেখানে কমিটির কাউকে সে তোয়াক্কা করে না ,এমনকি অত্র মসজিদ কমিটি সভাপতিকে তার কার্যক্রম থেকে দূরে রাখা হচ্ছে। তার বিরুদ্ধে কেউ কথা বললেই তাকে চক্রান্ত করে কমিটি থেকে বের করার পাঁয়তারা করে অথবা মামলার ভয়ভীতি দেখায়।

আরও অবাক করার বিষয় হচ্ছে আমাদের মসজিদের গচ্ছিত টাকার প্রায় ৫,৫০,০০০ (পাঁচ লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকা মসজিদের নির্ধারিত একাউন্টে না রেখে তাদের নিজস্ব একাউন্টে রেখেছে ।যা অক্ষত অবস্থায় আছে কিনা আমাদের মনে সংশয় আছে? এই ব্যাপারে মসজিদের সেক্রেটারি মোঃ আলম সাহেবের সাথে কথা বললে উনি জানানঃ মোতওয়াল্লীর নির্দেশেই মসজিদের নির্ধারিত একাউন্ট থেকে টাকা উত্তোলন করে তার নিজস্ব একাউন্টে ২,০০,০০০ (দুই লক্ষ) টাকা রাখা আছে, বাকি টাকা মোতোয়াল্লী নিজস্ব একাউন্টে!!

এটার রহস্য কি?

মুসল্লিদের মনের ভিতর অনেক বড় এক জিজ্ঞাসা?

মসজিদের টাকা থেকে নাকি আবার ঋণ প্রদান করা হয়!! বর্তমান সেক্রেটারি মোঃ সালাউদ্দিন বিগত দুই বছর যাবত মসজিদের টাকা থেকে ১৫,০০০ (পনের হাজার) টাকা ঋণ নিয়ে এখন পর্যন্ত পরিশোধ করেনি। এটা কি কোন সাংগঠনিক নিয়ম? এমতাবস্থায় মসজিদের এত অনিয়মকে নিয়মের মধ্যে আনা, মোতাওয়াল্লীর ক্ষমতার অপব্যবহার অপসারণ করা এবং মসজিদের গচ্ছিত টাকা হেফাজত করা আমাদের প্রত্যেক মুসলমানদের ঈমানী দায়িত্ব। তাই সকলের প্রতি আহবান থাকবে এর বিরুদ্ধে যথাযথ শাস্তির দাবি জানান।

মসজিদের মোতাওয়াল্লি মোঃ আফছার উদ্দিন জানান, তাদের আনিত অভিযোগ সর্ম্পূন মিথ্যা। মসজিদের সভাপতি আজাদ সাহেব যখন ছিল তখন সে ২৫ লক্ষ টাকার হিসাব দিতে পারে নাই আর দলিলে একটি দাগ নাম্বর ভুল হয়েছে সেই দাগ নাম্বার ঠিক করার জন্য কমিটির লোকজনই আমাকে বলেছিল দলিল ঠিক করার জন্য সেই টাকা খরচ হয়েছে। কমিটির লোকজন ও মুসল্লিগন আমাকে দায়িত্ব দিয়েছে। যেহেতু কমিটি না্ই তাহলে তো জমানো টাকা আমার কাছেই রাখতে হবে।

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment