এসআই ওসমান গনির বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় অভিযোগ

নারায়ণগন্জ নিউজ ২৪ ডট কমঃ নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশে কর্মরত ছিলেন এসআই ওসমান গণি। গ্রেফতার বাণিজ্য ও বেআইনী কর্মকান্ডে জড়িয়ে থাকার অভিযোগে ২০১৯ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর ওসমান গণিকে ক্লোজ করা হয়েছিল।

ওসমান গণি বর্তমানে কিশোরগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশে কর্তরত রয়েছেন। এবার সেই ওসমান গণির বিরুদ্ধে হত্যার চেষ্টার ঘটনায় ফতুল্লা মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে ভূক্তভোগী এক নারী।

হত্যার চেষ্টাসহ ওসমানের হুমকিতে ভূক্তভোগী নারী আতংকে দিন কাটাচ্ছেন। ভূক্তভোগী নারী রাবেয়া জেলা পরিষদ সংলগ্ন পরিবার নিয়ে বসবাস করেছেন। রাবেয়া জানান, নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশে কর্তরত থাকা অবস্থায় ওসমানের সঙ্গে আমার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। পরবর্তিতে বিয়ে করার পর আমাদের এক ছেলে সন্তানের জন্ম হয় যার বর্তমানে দেড় বছর। ওসমান এরআগেও একটি বিয়ে করেছে। আমি কিশোরগঞ্জ থাকাকালীন সময়ে হঠাৎ আমার উপর নির্যাতন শুরু করে ওসমান। এমনকি বাড়ি থেকেও আমাকে বের করে দেয়।

এঘটনায়  নারায়ণগঞ্জ বিজ্ঞ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ‘খ’ অঞ্চল আদালতে মামলা করি। সেই মামলায় ওয়ারেন্ট বের হলে গত ২৮ ডিসেম্বর জামিন নিতে আসে ওসমান। জামিন নিয়ে আমার বাড়িতে গিয়ে মারধর করে। এক পর্যায় দুই হাত দিয়ে গলা চাপিয়া আমাকে হত্যার চেষ্টা করে। পরে আমার ডাকচিৎকারে আশেপাশের লোক এসে আমাকে উদ্ধার করে। পুলিশের কি ভয়ঙ্কর রূপ তা আমাকে দেখিয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে চলে যায় ওসমান গণী। এঘটনার আমি চিকিৎসা শেষে ফতুল্লা মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছিল।

রাবেয়া আরো জানান, ওসমান পুলিশের লোক হওয়ায় আমি তেমন আইনী সহায়তা পাচ্ছি না। বরং নানা ভাবে আমাকে ও আমার পরিবারকে হয়রানি করছে। এব্যাপারে ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রকিবুজ্জামান জানান, আমরা অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত শেষে অপরাধীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। অপরাধী যেই হোক আইন সবার জন্য সমান।

উল্লেখ্য, ওসমান গণী নারায়ণগঞ্জ থাকাকালীন সময়ে বেআইনী কাজে সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগ ছিল। যার প্রেক্ষিতে তৎকালীন পুলিশ সুপার ওসমান গণীকে ক্লোজ করেছিল। এছাড়াও ওসমানের বিরুদ্ধে বিপুল পরিমান অবৈধ সম্পদ রয়েছে বলে তথ্য পাওয়া গেছে।

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment