ফতুল্লায় প্রকাশ্য দিবালোকে খুন

নারায়ণগন্জ নিউজ ২৪ ডট কমঃ মাদকের আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ইসদাইরে শামীম (৩৫) নামের যুবককে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা।

নিহত শামীম মুন্সিগঞ্জ জেলার শ্রীনগর থানার পাড়াগাও গ্রামের আলমগীর হোসেনের ছেলে। স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে শ্বশুড় বাড়ী ফতুল্লার দাপা ইদ্রাকপুর এলাকার শহীদ হোসেনের বাড়িতে ভাড়া থাকে। সে গ্যাস সিলেন্ডারের ব্যবসা করেন।

(৬ এপ্রিল) বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় ওই ঘটনার পর ওয়াসিম নামে একজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

জানা গেছে, মাদক নিয়ে পত্রিকায় প্রকাশিত একটি সংবাদকে নিয়ে শামীম ও জামালের সাথে বাকবিতন্ডতায় জড়ান রাজ্জাক ও তার লোকজন।

এসময় তাদের মধ্যে উচ্চ বাক্য হলে পাশে রাজ্জাকের ভাঙ্গারী দোকানে ভিতরে শামীম ও জামালকে টেনে নিয়ে যায় প্রতিপক্ষ। এ সময় শামীমের সাথে ধস্তাধস্তি শুরু হলে ফাঁকে দোকান থেকে বাহির হয়ে বেঁচে যান জামাল।

জামাল জানান, মাদক নিয়ে সংবাদ প্রকাশ হওয়া সে সকল অভিযোগ শামীমের উপর তুলে দেয় রাজ্জাক। এ সময় রাজ্জাকের নেতৃত্বে জসিম, জাকির, আলম, মহসিন, আলী ও ওয়াসিম প্রায় ১১ জন মিলে আমাকে ও শামীমকে তার ভাঙ্গারী দোকানে ঢুকিয়ে সার্টার লাগিয়ে দেয়। এ সময় শামীমের সাথে ওদের ধস্তাধস্তি ফাঁকে আমি দোকান থেকে বের হয়ে যাই। তারপর আমাকে মাথায় রড দিয়ে আঘাত করেছে। শামীমকে বাঁচাতে চিৎকার দিলেও কেউ এগিয়ে আসেনি।

জামাল আরো জানান, রাজ্জাকের নেতৃত্বে শামীমকে দেশীয় অস্ত দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে।

অপরদিকে পুলিশ অভিযান চালিয়ে রাজ্জাকের ছেলে ওয়াসিমকে আটক করে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসলে তার উপর চড়াও হয় শামীমের স্বজন ও সমর্থকরা। এতে ওয়াসিমকে ছিনিয়ে নিতে পুলিশের ভ্যানে চড়ে বসে তারা। পুলিশের তৎপরতা ওয়াসিমের বহনকরা গাড়ী দ্রুত হাসপাতাল ত্যাগ করলে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

এ ব্যপারে ফতুল্লা মডেল থানার ওসি রকিবুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। হত্যার রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা চলছে।

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment